এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীমের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং এর কোন প্রমান মিলেনি

1

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের শীর্ষে থাকা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিকেবি এন্ড কোম্পানী প্রাইভেট লিমিটেডের চেয়ারম্যান এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীমের বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিং এর কোন প্রমাণ মিলেনি। তার বিরুদ্ধে কোন ধরনের অর্থপাচারের প্রমান পাননি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তারা।

মামলা সুত্রে জানাযায়, ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীমের নামে কয়েকটি মামলা করা হয়। ইতিমধ্যেই র‌্যাবের করা মানিলন্ডারিং এর মামলার চার্জসিট সম্পন্ন করেছেন পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ(সিআইডি) তাতে তাদের বিরুদ্ধে বিদেশে অর্থ পাচার বা সম্পদ থাকার প্রমান পায় নি। যে পরিমান বিদেশী মুদ্রা তার কাছে পাওয়া যায় সেগুলো পাঁচটি পাসপোর্টের বিপরীতে উইন্ডোজ করা ছিল।

এদিকে, তার বিরুদ্ধে করা অস্ত্র এবং মাদক মামলা দুটির জামিন হাইকোর্ট স্থগিত করে দেয়। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, শামীমের কাছে কোন অবৈধ অস্ত্র পাওয়া যায় নি। এমনকি বৈধ অস্ত্রের অবৈধ ব্যবহারের কোন তথ্য প্রমাণ এখন পর্যন্ত মিলেনি। প্রতিষ্ঠানটির কার্য্যালয়ে ৪-৫ বোতল মাদক থাকায় তার বিরুদ্ধে মাদকের মামলাটি গুলশান থানায় করা হয়।

এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীমরে প্রতিষ্ঠানের আওতায় এতগুলো কাজ পাওয়ার বিষয়ে মানুষরে মাঝে কছিুটা গুঞ্জন থাকলওে, তার কাজ পাওয়ার পদ্ধতি স্বচ্ছতা এবং কাজের গুনগত মানরে বরিুদ্ধে কোন তথ্য প্রমাণ পাওয়া যায়ন।

জানাগেছে, তার নির্মান প্রতষ্ঠিান সকল কাজ যথাসময়ে চুক্তি অনুযায়ী সকল র্শত পুরন করে সরকারের যথাযথ র্কতৃপক্ষরে নিকট হস্তান্তর করেছেন।
মাননীয় র্অথমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেছিলেন, “এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীম কাজ বাগাতে কারো কাছে তদবির করতেন না। তিনি তার দক্ষতা দিয়েই সকল কাজ পেয়েছেন।

জি কে শামীম ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে গ্রেফতার হওয়ার পর প্রায় ৭ মাস ধরে কাজ বন্ধ থাকার কারণে তার প্রতিষ্ঠানে কর্মরত প্রায় ১০ হাজার নির্মাণ শ্রমিক ও দৈনিক খোরাকী, সাপ্লাইয়ার ও সাব-কন্ট্রাক্টরের বিল বিভিন্ন কর্মচারী ও কর্মকর্তারা অসহায় ও মানবেতর জীবন যাপন করছে। তারা এ অনিশ্চয়তা কাটাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছেন।

জি কে বি এন্ড প্রাইভেট কোম্পানি লিমিটেড এর চীফ টেকনিক্যাল কো-অরডিনেটর রাজু আহমেদ বলেন, জিকেবি এন্ড কোম্পানী প্রাইভেট লিমিটেড ইতিমধ্যেই সরকারেরর অসংখ্য জনগুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ও ভবনাদি সুষ্ঠ, সঠিক ও সর্বোচ্চ গুণগতমান নিয়ে করেছে। যা অবশ্যই প্রশংসার দাবি রাখে।
বর্তমান সরকারের রুপকল্প ২০২১ এর উন্নয়নমূলক অগ্রাধিকার প্রকল্প সমূহ বাস্তবায়ন সম্পন্ন করার জন্য জি কে বি এন্ড প্রাইভেট কোম্পানি লিমিটেড এর চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া শামীম সাহেবের নিঃশর্ত মুক্তি প্রার্থনা করেন কোম্পানীটির এই কর্মকর্তা।

এবিষয়ে জানতে চাইলে এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীমের আইনজীবী শওকত ওসমান বলেন, শামীম নেহায়েত একজন ব্যবসায়ী। তিনি বড় একটি নির্মান প্রতিষ্ঠানের মালিক। তার বিরুদ্ধে কেসিনো কর্মকান্ডে জড়িত থাকার কোন অভিযোগের তথ্য পাওয়া যায়নি। তাকে যেসকল মামলা দেয়া হয়েছে সেসব মামলায় দুর্নীতি প্রতিয়মান হয়নি।

তিনি যেসব সরকারি কাজ সম্পন্ন করার মাধ্যমে বিল পেয়েছেন সেই টাকা থেকে একশ পয়ষট্টি কোটি টাকা এফডিআর করেছেন। তিনি কোন মানি লন্ডারিং করেননি। তার সকল টাকা বৈধ। যার সব ডকুমেন্টস আমাদের কাছে আছে। মহামান্য হাইকোর্ট তাকে এসব মামলায় জামিন দিয়েও আবার তা স্থগিত করেছেন। এসব মামলা জামিন যোগ্য। রাষ্টের একজন নাগরিক হিসেবে সাংবাধানিক ভাবে তিনি জামিন পেতে পারেন। আমরা আদালতের কাছে ন্যায় বিচার প্রার্থনা করছি।