এসিআই মোটরস বিদেশী বিনিয়োগে ১২৬ কোটি টাকা অবতরণ করে

1

এসিআই মোটরস প্রথম বৈদেশিক বিনিয়োগ ল্যান্ডিং করায় দুটি সংস্থার কাছ থেকে ইক্যুইটি ভিত্তিক বৈদেশিক বিনিয়োগ নিরাপদ করতে প্রস্তুত।

নেদারল্যান্ডস এবং সিঙ্গাপুরের তহবিল ব্যবসায়ের বৃদ্ধি ত্বরান্বিত করতে এবং এসিআই মোটরগুলির বিদ্যমান উত্পাদন সুবিধা সম্প্রসারণ করতে ব্যবহৃত হবে।

“এসিআই মোটরসটির প্রবৃদ্ধির বিশাল সম্ভাবনা রয়েছে। সুতরাং, আমরা আরও বিনিয়োগের দিকে যেতে চাই যেখানে ণের চেয়ে ইক্যুইটি বিনিয়োগ ভাল,” সংস্থাটির মালিকানাধীন এসিআইয়ের অর্থ ও পরিকল্পনার নির্বাহী পরিচালক প্রদীপ কর চৌধুরী বলেন।

২৪.৩৩ লক্ষ রূপান্তরযোগ্য নন-ক্রমবর্ধমান অগ্রাধিকার শেয়ারের জন্য প্রত্যেককে ১০০ টাকার প্রিমিয়ামে ৪৪০ টাকা জরিমানা করা হবে।

ক্রমহীন অগ্রাধিকার শেয়ারের ক্ষেত্রে, লভ্যাংশটি প্রতি বছর নিট লাভ থেকে প্রদেয় যদি সংস্থাটি এক বছরে কোনও নিট মুনাফা না করে, তবে পরবর্তী বছরগুলিতে লভ্যাংশের বকেয়া দাবি করা যাবে না।

শেয়ারটি বাংলাদেশ-পরিচালিত অ্যাকাউন্ট সিভি, এফএমও এবং এসডিআই প্রাইটির সীমিত অংশীদার, দুই বিনিয়োগকারীকে দেওয়া হবে।

এফএমও হ্যাচ ভিত্তিক একটি দ্বিপাক্ষিক বেসরকারী খাতের আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসাবে কাঠামোগত একটি ডাচ উন্নয়ন ব্যাংক।

সিঙ্গাপুরে ভিত্তিক, সলিউশন ডিজাইন এবং ইন্টিগ্রেশন নেটওয়ার্ক পিটি কাস্টমাইজড ডিজাইন, বানোয়াট এবং একটি স্বয়ংক্রিয় এবং ইন্টারেক্টিভ কিওস্ক এবং পাবলিক ডিসপ্লে সলিউশনগুলি স্থাপনে বিশেষী।

এই ব্যবস্থাটি এসিআই মোটরসগুলিতে এসিআইর অংশীদারিত্ব হ্রাস করবে ৬৫ শতাংশ থেকে ৫২.. শতাংশে।

“এই বিনিয়োগের ফলে এসিআই মোটরসকে আরও এগিয়ে যেতে হবে,” চৌধুরী আরও যোগ করেন।

এসিআই মোটরস কৃষি যন্ত্রপাতি, নির্মাণ সরঞ্জাম এবং মোটরসাইকেলের মতো পণ্য বিক্রি করে।

এটি উচ্চ অশ্বশক্তি কৃষি যন্ত্রপাতি একটি সম্পূর্ণ লাইন আপ অফার করে, ট্রাক্টর, পাওয়ার টিলার, রিপার, মিনি কম্বাইন হারভেস্টার এবং ধান ট্রান্সপ্লান্টার আনয়ন করে।

এটি সোনালিকা ট্র্যাক্টর প্রবর্তন করে, এটি বিশেষভাবে বাংলাদেশের জন্য নকশাকৃত এটি ছোট জমির আকার এবং রাস্তার জন্য উপযুক্ত করে তোলে।

এসিআই মোটরস ২০১৬ সালে ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের বিতরণকারী হয়েছিল।

সংস্থাটি বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় নির্মাণ যন্ত্রপাতি প্রস্তুতকারকদের কাউকে প্রতিনিধিত্ব করে, অন্যদের মধ্যে ব্যাকহো লোডার, মাটি কমপ্যাক্টর এবং ট্যান্ডেম রোলার সরবরাহ করে।

২০১৭ সালে, এসিআই মোটরস হুইল লোডার এবং মিনি খননকারী বিভাগে চীনের শীর্ষস্থানীয় ব্র্যান্ড লোভোলের নির্মাণ সরঞ্জাম যুক্ত করেছে।

এটি প্রিমিয়াম ব্র্যান্ডের খননকারকের বিভাগে জাপানি ব্র্যান্ড কোবেলকোকে এনেছে। ২০১৯সালে, এটি ভারতের ইন্দো ফার্ম সরঞ্জাম থেকে পিক এবং ক্যারি বহন করে।

“নতুন শেয়ারহোল্ডারদের দক্ষতা, বিশেষত এফএমওর দক্ষতা আমাদের যথেষ্ট পরিমাণে সহায়তা করবে,” এসিআইয়ের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা চৌধুরী বলেন।

বিদেশী বিনিয়োগকারীরা সংস্থার বোর্ডে বসবে এবং এভাবে কর্পোরেট প্রশাসনের আরও উন্নতি করতে ভূমিকা রাখবে, তিনি যোগ করেন।

২০১২-২০১৩অর্থবছরের তিন প্রান্তিকে এসিআই মোটরসটির আয় দাঁড়িয়েছে ৯৫৪ কোটি টাকা। পুরো বছরের প্রতিবেদন এখনও প্রকাশ করা হয়নি।

৩১ মার্চ পর্যন্ত সম্পদের মূল্য ধরা হয়েছে ১,৪০৭ কোটি এবং দায় এক হাজার ১১৫ কোটি টাকা।

এসিআই মোটরস ১৯ জুলাই ২০১৯ থেকে এই বছর ২০ মার্চ পর্যন্ত ৯৮.৬ কোটি টাকার লাভ করেছে।

তবে এসিআই একই সময়ে একই সময়ে ১১৯.৫ কোটি টাকা লোকসান করেছে, বেশি অপারেটিং ব্যয় এবং অর্থ ব্যয়ের কারণে।

সর্বশেষ তিন প্রান্তিকে এসিআইয়ের মোট অর্থ ব্যয় ছিল ৩৫২.। কোটি টাকা এবং অপারেটিং ব্যয় সর্বমোট ১,২৬৪.২ কোটি টাকা।

৩১ শে মার্চ পর্যন্ত এই গ্রুপের দীর্ঘমেয়াদী ব্যাংক ঋণ দাঁড়িয়েছে ৮২৬কোটি টাকা এবং স্বল্পমেয়াদী ঋণ ২৯৯৯ কোটি টাকা।

বৃহস্পতিবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত এসিআইয়ের শেয়ার বৃহস্পতিবার ২ শতাংশ বেড়ে ২৩ টাকায় দাঁড়িয়েছে।