‘খালেদা জিয়াকে ফের আবেদন করতে হবে’

1

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারাগারের বাইরে থাকার ছয় মাসের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর। এ বিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম গতকাল সোমবার সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘যেহেতু সরকারের নির্বাহী আদেশে তাঁকে আপাতত মুক্তি দেওয়া হয়েছে। ঠিক মুক্তি বলব না, বাইরে থাকার অনুমতি দিয়েছেন। সুতরাং এই সময়টা পার হলে সরকারের কাছে আবেদন করতে হবে। এখানে আদালতের কোনো বিষয় না।’

ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারার ক্ষমতাবলে সরকার শর্ত সাপেক্ষে ছয় মাসের জন্য খালেদা জিয়াকে মুক্তির আদেশ দেয়। এই আদেশে গত ২৫ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালের প্রিজন সেল থেকে মুক্তি পান খালেদা জিয়া।

দুর্নীতির দুই মামলায় ১৭ বছরের কারাদণ্ড মাথায় নিয়ে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাবন্দি খালেদা জিয়া। তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে বিএসএমএমইউতে ভর্তি করা হয়। সেখানেই তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন। তাঁর শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে পরিবারের সদস্যদের আবেদনে তাঁর সাজা ছয় মাসের জন্য স্থগিত রেখে তাঁকে সাময়িক সময়ের জন্য মুক্তি দেয় সরকার। এরপর খালেদা জিয়া রাজধানীর গুলশান এভিনিউর নিজের বাসভবন ফিরোজায় যান। এই মেয়াদ শেষ হলে তাঁকে কারাগারে ফিরে যেতে হবে। তবে কারাগারে যেতে না চাইলে মুক্তির মেয়াদ বাড়াতে সরকারের কাছেই (স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে) আবেদন করতে হবে তাঁর পরিবারকে

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা হত্যা ও রাষ্ট্রদ্রোহের মামলাসহ ১১ মামলার শুনানির তারিখ আগামী ৬ অক্টোবর ধার্য করেছেন আদালত। গতকাল সোমবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েস এ তারিখ ধার্য করেন।
খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দারুস সালাম থানায় আটটি এবং যাত্রাবাড়ী থানায় দুটি মামলা রয়েছে। এ ছাড়া রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা রয়েছে একটি। এই ১১ মামলার মধ্যে ১০টির অভিযোগ গঠন শুনানি এবং যাত্রাবাড়ী থানার অন্য একটি মামলার অভিযোগপত্র গ্রহণের দিন ধার্য রয়েছে।

কালের কন্ঠ