গলাচিপায় মানব পাচারকারী গ্রেফতার

5

তারেক সালমান: সাম্প্রতিককালে মানব পাচার প্রতিরোধে র‍্যাব- ৮, বরিশাল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। গত ২৮ মে ২০২০ইং তারিখে লিবিয়া রাজধানী এিপোলির দক্ষিণ শহর মিজদায় আন্তর্জাতিক মানব পাচার চক্র অভিবাসন প্রত্যাশিদরকে অপহরণ করে মুক্তিপণ না পাওয়া ২৬ জন বাংলাদেশীসহ ৩০ জন কে গুলি করে হত্যা করে এবং ১১ জন বাংলাদেশীকে গুরুতর আহত করে। র‍্যাব-৮ লিবিয়া সহ বিভিন্ন দেশে পাচারকারীদের তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করতঃ দ্রুত গ্রেফতারের লক্ষ্যে অভিযান পরিচালনা করে আসছে।

এরই ধারাবাহিকতায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‍্যাব-৮ জানতে পারে যে, দীর্ঘদিন যাবৎ একটি মানব পাচারকারী চক্র মধ্যে প্যাচ্যের বিভিন্ন দেশে মোটা অংকের বেতনের চাকরীর প্রলোভন দেখিয়ে মানব পাচার করছে। এদের শিকার মূলত মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের উঠতি বয়সের বেকার যুবকরা। বর্ণিত চক্রটি বাংলাদেশে থেকে যুবকদের মধ্যেপ্যাচ্যে পাচার করে থাকে।তৎপরবতীঁতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‍্যাব-৮ এর একটি চৌকস অভিযানিক দল অদ্য ১৬ অগস্ট ২০২০ তারিখ সন্ধ্যা o৭:oo ঘটিকার সময় পটুয়াখালী জেলার গলাচিপা থানাধীন আমখোলা ইউনিয়নের কিসমত বাউরিয়া গ্রাম হতে মোঃ সোহরাব গাজী (৫০), পিতা- মৃত রকমান কাজী, সাং- কিসমত বাউরিয়া, ইউনিয়ন- আমখোলা, থানা-গলাচিপা,জেলা- পটুয়াখালী গ্রেফতারকৃত আসামীকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে উক্ত চক্রের সদস্য বলে স্বীকার করেন এবং প্রাপ্ত গোপন তথ্য সমূহের সত্যতা পাওয়া যায়।

গ্রেফতারকৃত আসামী প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পলাতক আসামী ১। আসমী মোঃ সাইফুল ইসলাম (৩০), পিতা – মোঃ সোহরাব গাজী, সাং – কিসমত বাউরিয়া, ইউনিয়ন- আমখোলা, থানা-গলাচিপা, জেলা পটুয়াখালী (বতর্মান ওমান অবস্থান করিতেছে) ও ২। মোঃ গনি মিয়া বয়স- অজ্ঞাত, পিতা-অজ্ঞাত, সাং-অজ্ঞাত, থানা-অজ্ঞাত, জেলা- কুমিল্লা (বতর্মান ওমান অবস্থান করিতেছে) এর সাথে যোগসাজসে অবৈধভাবে মধ্যে প্যাচ্যের দেশ ওমানে বাংলাদেশে হতে বিভিন্ন উপায় মানব পাচার করে। আটককৃত আসামীকে পটুয়াখালী জেলার গলাচিপা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।