গুনাহ থেকে বাঁচার উপায় হলো চুপ থাকা

1

আমাদের মনের ভাব প্রকাশ করার জন্য আল্লাহ তাআলা জিহ্বা দিয়েছেন। যা আমাদের কথা বলতে এবং মনের ভাব প্রকাশ করতে সাহায্য করে। জিহ্বার ব্যবহার ছাড়া কোনো মানুষই কথা বলতে পারে না। জিহ্বা এমন একটি অঙ্গ যা দিয়ে আপনি অনেক নেক অর্জন করতে পারেন।আবার এর অজাচিত ব্যবহারে আপনি বদ নসীবও হতে পারেন। জিহ্বা আল্লাহর এক বিশেষ নেয়ামত, আমরা দেখতে পাই, জিহ্বা সব সময়ই ভেজা থাকে। আল্লাহ তাআলা জিহ্বার গোড়া থেকে প্রতিনিয়ত পানি সৃষ্টি করছেন। যখন চুপ থাকি, তখন পানি অল্প পরিমাণে আসে, যখন কথা বলি তখন বেশি আসে। খাওয়া দাওয়ার সময় আরো বেশি আসে। কারণ খাবার গলাধঃকরণের জন্য চিবানোই যথেষ্ট নয়, বরং জিহ্বার পানি দিয়ে ভিজে পিচ্ছিল হতে হয়। আল্লাহ তাআলা জিহ্বার গোড়ায় প্রতিটি লোকমার সঙ্গে পরিমিত পরিমাণে পানিও সৃষ্টি করে দেন। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, আমি কি তার জন্য দুটি চোখ বানাইনি? আর একটি জিহ্বা ও দুটি ঠোঁট।’ (সুরা : বালাদ,আয়াত : ৮-৯)

হাদিসে পাকে জিহ্বার হেফাজতের ব্যাপারে প্রিয়নবী অনেক উপদেশ প্রদান করেছেন। কারণ এ জিহ্বা অনেক বিপদ ডেকে আনে। এ থেকে উচ্চারিত একটি শব্দই বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে যেতে পারে মহাপ্রলয়। জগৎজুরে রয়েছে এর অসংখ্য নযীর। তাই জিহ্বাকে সংযত রাখতে রাসূল সা: অসংখ্য হাদীসে আমাদেরকে সতর্ক করেছেন। সুফিয়ান ইবনে আবদুল্লাহ সাকাফি (রা.) বলেন, একবার আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে আরজ করলাম, হে আল্লাহর রাসুল, আমার জন্য যে জিনিসগুলো ভয়ের কারণ বলে আপনি মনে করেন, তার মধ্যে সর্বাধিক ভয়ংকর কোনটি? তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) নিজের জিহ্বা ধরলেন এবং বললেন, ‘এটা (অর্থাৎ জিহ্বা)’। (জামে তিরমিজী, হাদিস : ২৫৬৬)

গীবত,পরনিন্দা,অশ্লিল ও অযাচিত কথা বলা এবং মিথ্যা বলা এই সবগুলো হচ্ছে জিহ্বার অপকর্ম। তাই যে ব্যক্তি নিজের জিহ্বাকে সংযত রাখতে সক্ষম হবে সে অনেক অপরাধ থেকে নিজেকে বাঁচাতে পারবে। আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে সতর্ক করে বলেছেন আমরা যা কিছু উচ্চারণ করি সবি লিপিবদ্ব হয়। সে যে কথাই উচ্চারণ করে, তাই গ্রহণ করার জন্যে তার কাছে সদা প্রস্তুত প্রহরী রয়েছে। (সূরা ক্বাফ:১৮)

আমরা অনেক সময় অসতর্কতা বসত এমন কথা বলে ফেলি যা আল্লাহর নিকট অনেক ঘৃণিত। এক হাদীসে এসেছে আবু হুরাইরাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেনঃ নিশ্চয় বান্দা কখনও আল্লাহ্র সন্তুষ্টির কোন কথা বলে অথচ সে কথা সম্পর্কে তার চেতনা নেই। কিন্তু এ কথার দ্বারা আল্লাহ্ তার মর্যাদা বৃদ্ধি করে দেন। আবার বান্দা কখনও আল্লাহ্র অসন্তুষ্টির কথা বলে ফেলে যার পরিণতি সম্পর্কে তার ধারণা নেই, অথচ সে কথার কারণে সে জাহান্নামে নিক্ষিপ্ত হবে। (সহীহ বুখারী,হাদীস :৬৪৭৮)