গরীব,দু:খীর হৃদয়ে একটি নাম মাসুদুজ্জামান

472

নারায়ণগঞ্জের অসহায় মানুষের আস্থা, সহায় সম্বলহীন মানুষের আশ্রয়স্থল হিসেবে পরিচিত মডেল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী, ক্রীড়ানুরাগী, সমাজ সেবক মোহাম্মদ মাসুদুজ্জামান মাসুদ। এ জেলার ইতিহাসে একজন দয়াবান ও গরীব দু:খীর প্রতি অফুরন্ত ভালবাসার নিদর্শন মোহাম্মদ মাসুদুজ্জামান এক অন্যন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।
অসহায়, নিপীড়িত, নির্যাতিত জনতার হৃদয়ে একটি নাম মোহাম্মদ মাসুদুজ্জামান মাসুদ। যাকে কাছে পেয়ে অসহায় পায় সহায়, সম্বলহীনরা পায় নিরাপদ আশ্রয়। খুজে পায় জীবনের আলোর ঠিকানা। হাসি আনন্দের ঠিকানা।

অনেকে বলেন, মোহাম্মদ মাসুদুজ্জামান মাসুদ গরীব, দু:খী মানুষের প্রাণের পুরুষ, কেউ কেউ বলেন শুধু নারায়ণগঞ্জই নয় দেশের সবত্রই অসহায় মানুষের সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।
মাসুদুজ্জামান মাসুদ, এ যেন অন্ধকারের আলোর ছটা, আলোর দ্যুতি। বিশেষত একটি আলোকিত নারায়ণগঞ্জ গঠনে কাজ করছেন সেই ছোট্ট বেলা থেকেই। মাসুদুজ্জামান মাসুদ নিজেকেই সব সসয়ই বিলিয়ে দিতেন অনাহারির মাঝে। নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে মোহাম্মদ মাসুদুজ্জামান মাসুদ সহায় সম্বলহীন মানুষকে শন্তির চাঁদরে মুড়িয়ে দিচ্ছেন এমন দাবি হাজারো অসহায় পরিবারের।

এক সময়ের অসহায় মানুষগুলো আজ শান্তির পরশে আনন্দিত একজন মাসুদুজ্জামান মাসুদের জন্য। এমনটাই উঠে এসেছে আমাদের প্রতিবেদকের অনুসন্ধানে।
মহামারি করোনা ভাইরাসে যখন সংকটে পুরো দেশ। ঠিক তখনই অসহায় মানুষের পাশে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন মাসুদুজ্জামান, খাদ্য সামগ্রী দিয়েছেন বাড়ি বাড়ি, গরীব, দিন মজুর, মেহনতি মানুষ, মধ্যবৃত্তসহ সকল শ্রেনী পেশার মানুষের মাঝে খাদ্য নগদ অর্থ পৌছে দিয়েছেন মানবতার এই ফেরীওয়ালা।

এছাড়াও কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মান অনুসারে পিপিই, সার্জিক্যাল মাস্ক, থার্মোমিটার গগলস ও প্রোটেকটিভ শিল্ড এবং হ্যান্ড গ্লাভস আমদানি করে স্থানীয় জন প্রতিনিধি ও জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে এসব চিকিৎসা সামগ্রী নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন স্বাস্থ্যসেবা দানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে সরবরাহ করেছেন তিনি। করোনায় সর্বস্তরের মানুষের পাশে সহযোগীতার হাত বাড়িয়েছেন তিনি।

জানতে চাইলে বিশিষ্ট শিল্পপতি, সমাজ সেবক, শিক্ষানুরাগী, ক্রীড়ানুরাগী, মডেল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাসুদুজ্জামান মাসুদ এই প্রতিবেদককে জানান, যা কিছু করছি মহান আল্লাহ তায়ালাকে রাজি খুশি করতেই করছি।