বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও শিক্ষানুরাগী মাসুদুজ্জামানের সন্মানহানী মেনে নিবে না নারায়নগঞ্জবাসী

1280

বিবি মরিয়ম স্কুলের প্রধান শিক্ষক শফিউল আলম এ যেনো “গোদের ওপর বিষফোঁড়া” প্রধান শিক্ষক পদে দায়িত্বের মেয়াদের শেষ প্রান্তে দাঁড়িয়ে পুনরায় সে পদে বহাল করতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন দূর্নীতিবাজ শফিউল আলম।

১১ নম্বর ওয়ার্ড তথা হাজিগঞ্জ এলাকায় কৃতী সন্তান মাসুদুজ্জামান মাসুদ নিজ অর্থায়নে প্রাণের এলাকার বিবি মরিয়ম উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় কে নারায়ণগঞ্জের একটি আদর্শ স্কুল হিসেবে গড়ে তোলার প্রয়াসে স্কুলটির প্রধান অভিভাবকের দায়িত্ব নেন। ম্যানেজিং কমিটির প্রধানের দায়িত্ব নিয়ে উক্ত ওয়ার্ড ও আশপাশের সুধীসমাজ শিক্ষানুরাগীদের সাথে নিয়ে যুগোপযোগী শিক্ষা ব্যবস্থা প্রণয়নের দৃঢ় প্রত্যয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত সাবেক কমিটিগুলোকে বিলুপ্ত করেন।

শুরু করেন সংস্কার ও পরিবর্তনের যুদ্ধ। স্কুলটি সাজতে শুরু করে নতুন সাজে। অভিবাবকদের দাবির মুখে স্কুল ফি কমানো হয় ৩0 শতাংশ,শিক্ষকদের মনসংযোগ বৃদ্ধিকল্পে বেতন বাড়ানো হয় ৩0 শতাংশ। ক্লাস রুমের পাশেই স্থাপন করা হয় সুপেয় পানির সুব্যবস্থা। টয়লেট ব্যবস্থার সংস্কার করা হয়, যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আইসিটি কে ঢেলে সাজানো হয়। “সুস্থ দেহ সুন্দর মন”এই বিবেচনাকে সামনে নিয়ে খেলার মাঠের উন্নয়নে মনোযোগী হন বিশিষ্ট শিল্পপতি মাসুদুজ্জামান মাসুদ।

এমনি উন্নয়নের ধারাবাহিকতা দেখে একটি মহল ঈর্ষান্বিত হয়ে ঐতিহ্যবাহী ঐতিহাসিক এই স্কুলটি কে ধ্বংস করার পাঁয়তারা লিপ্ত হয়।
“চোরে না শুনে ধর্মের কাহিনী” স্কুলের প্রধান শিক্ষক শফিউল আলমের দায়িত্বের মেয়াদ আসছে ৩0 তারিখে শেষ হবার কথা কিন্তু শিক্ষাখেকো শফিউল আলম যে নাছোড়বান্দা,তিনি তার দায়িত্ব ছাড়তে নারাজ।

স্কুলটিকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দেওয়াই যেন আজ তার দায়িত্ব। এমনি অবস্থায় তাঁর চেয়ারে বহাল তবিয়তে অাসিন থাকার প্রয়াসে সে বেছে নিয়েছে অসৎ পন্থা।
“এ যে শিক্ষিত সভ্য সমাজের উলঙ্গ নৃত্য”।

মরহুম নাসিম ওসমান সাহেবের পুত্র অাজমেরি ওসমান কে বিভ্রান্ত করে লেলিয়ে দেয়া হলো শিক্ষানুরাগী মাসুদুজ্জামান মাসুদ সাহেবের উপর। মাসুদ সাহেবের সামাজিক ও প্রাতিষ্ঠানিক সকল কর্মকান্ডের কান্ডারী মনির হোসেন সর্দার কে লাঞ্ছিত অপমানিত করার অপচেষ্টা চালানো হলো, সাথে শফিউল আলম কে স্ব-পদে বহাল রাখার জন্য হুমকি ধমকি দেওয়া হলো। শিক্ষাব্যবস্থা ধ্বংসের এমনি অপপ্রয়াসকে অভিভাবক এলাকাবাসী সুধী সমাজ কেউই সহজভাবে মেনে নিতে পারছে না।

ঐতিহ্যবাহী এই স্কুলটিকে বাঁচাতে বিক্ষুব্ধ জনতা স্কুল সম্মুখে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে। শিক্ষানুরাগী বিবেকবান সুশীল সমাজ ও এলাকাবাসী শিক্ষাব্যবস্থা ধ্বংসের অশুভ পাঁয়তারা থেকে স্কুলটিকে বাঁচাতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়েল সহযোগিতা কামনা করেছেন।