বৃষ্টি হলেই আতঙ্কে থাকেন পৌরবাসী

1

একটু বৃষ্টিতে জলজিটের সৃষ্টি হয় ৯৮ হাজার জনগোষ্ঠীর শেরপুর পৌর শহরের বেশ কয়েকটি এলাকায়। রাস্তাঘাট ডুবে থাকার পাশাপাশি পানি ঢুকে পড়ে বাড়িঘর, স্কুল ও অফিসে।

বৃষ্টি হলেই জলজট নকলা শেরপুর পৌরবাসী। সবচেয়ে বেশি নাজুক অবস্থা শহরের প্রাণকেন্দ্র খরমপুর থেকে তেরাবাজার, শিংপাড়া, সজবরখিলা, মাধবপুর, গৃদানারায়ণপুর, গৌরীপুর। বৃষ্টি শুরু হলেই হাটু পানিতে তলিয়ে যায় রাস্তাঘাট। পানি ঢুকে পড়ে বাড়ি-ঘর, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও অফিসে। এ অবস্থার জন্য অপরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থাকেই দায়ী করছেন পৌরবাসী।

স্থানীয়দের অভিযোগ, পরিস্থিতি নিয়ে বার বার অভিযোগ দিলেও উদাসীন পৌর কর্তৃপক্ষ। স্থানীয়রা জানান,’পাঁচ মিনিটের বর্ষণে আমাদের ঘরে পানি ওঠে। বাড়ি থেকে বের হওয়ার কোন উপায় থাকে না। প্রতিনিয়তই আমরা এই সমস্যার সম্মুখিন হচ্ছি। এ সমস্যার দ্রুত সমাধান চাই।’চলমান ড্রেনেজ ব্যবস্থার কাজ শেষ হলেই সমস্যা কেটে যাবে; জানান পৌর মেয়র। শেরপুর পৌরসভা মেয়র গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া লিটন বলেন,’ শেরপুর পৌরসভা বিভিন্ন সমস্যার মধ্যে রয়েছে। হঠাৎ যখন অনেক বৃষ্টি হয় তখন খুব তাড়াতাড়ি পানি সরে যায় না। চলমান ড্রেনের কাজগুলো হলে আশাকরি এ সমস্যার সমাধান হবে।’

১৮৬৯ সালের ১লা এপ্রিল শেরপুর পৌরসভা স্থাপিত হয়। ১৯৯৩ সালে উন্নীত হয় প্রথম শ্রেণির পৌরসভা হিসেবে