মনিরামপুরের সুফিয়া বেগম স্বর্ণলতা প্রি ক্যাডেড স্কুল ধ্বংসের ষড়যন্ত্রকারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ

2

মনিরামপুর প্রতিনিধি: মনিরামপুর উপজেলার সুফিয়া বেগম স্বর্ণলতা প্রি ক্যাডেড স্কুল ধ্বংস করতে ষড়যন্ত্রে নেমেছে একটি চক্র। স্কুলের পাশের জমির মালিকের ছেলে হেলাল এই চক্রের নেতৃত্ব দিচ্ছে। এ ঘটনায় স্কুলের প্রতিষ্টাতা উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ দায়ের করেছেন।

লিখিত অভিযোগে জানা যায়, ২০১৭ সালে স্কুলের বহুতল ভবন নির্মানের আগে সার্ভেয়ার দিয়ে জমি মেপে সীমানা নির্ধারন করা হয়। পরে ভবন নির্মান করা হয়েছে। কিন্তু পাশের জমির মালিকের কলেজ পড়ুয়া ছেলে হেলাল

সিমনা নিয়ে ষড়যন্ত্র করে চলছ একটি চক্র। ঐ চক্রের প্রধান হিসাবে কাজ করছে পাশের জমি মালিকের ছেলে হেলাল হোসেন জমির সিমানা নির্ধাণ করা নিয়ে বিভিন্ন সময় স্কুলের ক্ষয়ক্ষতি করে চলছ। ইতিপূর্বে ছাদের কার্নিসের রড কেটে দিয়েছে।

সম্প্রতি ২৭শে মে দুপুরে স্কুল প্রতিষ্টাতার পিতা সাহেব আলী স্কুল সংলগ্ন মোড়ের ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে বাড়ি যাওয়ার সময় ঐ হেলাল সহ কয়েকজন তার উপর চড়াও হয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ সহ লাঞ্চিত ও জীবননাশের হুমকি দেয়।
সংবাদ পেয়ে প্রতিষ্টাতা জাকির হোসেন ও তার ভাই ঘটনা স্থলে আসলে তারা লাঠি দিয়ে আমাদের উপর হামলা চালায় ও আমার পিতার ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানের সার্টারে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে। একই সময় আমার চাচাতো ভাই বিপ্লবের মুদী দোকানে হামলা চালায়। এসময় প্রতিষ্টানের কয়েকটি বেন্চ ভাংচুর করে বলে অভিযোগে জানা যায়।
উল্লেখ্য কলেজ পড়ুয়া এই হেলালের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ উঠেছে। এরমধ্যে ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে মেয়েলি ঘটনাকে কেন্দ্র করে নূর নবী নামের একটি ছেলের মাথা ফাটিয়ে দেয়।
এর এক মাস পরে সালামাতপুর গ্রামের ইসরাফিলের সাথে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে বেধড়ক মারপিট করে। ২০১৮ সালের গ্রামের মসজিদের ওয়াজ মাহফিলের অনুষ্ঠানে খেদাপাড়ার এক ছেলেকে মারপিট করায় মাহফিল বন্ধ হয়ে যায়।

এসকল অনৈতিক কর্মকান্ডের মূল নায়ক হেলালের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহনের জন্য জোর দাবি জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠান কতৃপক্ষ।