শিবচরে ১৯ শিক্ষার্থী হোম কোয়ারেন্টাইনে

1

মাদারীপুর প্রতিনিধি:
আইসোলেশনে থাকা ইতালিপ্রবাসীর সন্তানের সাথে লেখাপড়া করা একই শ্রেণিকক্ষের ১৯ শিক্ষার্থীকে মাদারীপুরের শিবচরে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। স্কুলটির প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে আইইডিসিআর এর কর্মকর্তারা ও চিকিৎসকরা এ দিন হাসপাতালে আলোচনা করেছে বলে জানা গেছে। ওই ১৯ শিক্ষার্থীসহ শিবচরেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ৭০ জন। জেলায় মোট হোম কোয়ারেন্টাইনে আছে ১২৯ জন। এ ছাড়া গেল কয়েকদিনে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর জেলায় ১৩৮ জনকে রিলিজ করা হয়েছে। ঢাকায় আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে ইতালিপ্রবাসীর শাশুড়িকে। এর আগে ওই ইতালিপ্রবাসী, স্ত্রী ও সন্তানকে ঢাকার আইসোলেশনে পাঠানো হয়।

প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগসহ স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, গত এক সপ্তাহ আগে ইতালি থেকে শিবচর পৌর এলাকার এক প্রবাসী দেশে আসে। দেশে আসার পর জ্বর-কাশি অনুভব করলে সে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যায়। পরে চিকিৎসকদের পরামর্শে ঢাকায় আইইডিসিআর এ প্রেরণ করা হয় তাকে। আইইডিসিআর এর পক্ষ থেকে গত রবিবার সকালে শিবচরে এসে অ্যাম্বুলেন্সে করে তার স্ত্রী ও সন্তানকে ঢাকায় আইসোলেশনে নিয়ে যাওয়া হয়। সোমবার ওই প্রবাসীর শাশুড়িকেও ঢাকায় আইসোলেশনে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগের পরামর্শে ওই ইতালিপ্রবাসীর শিশুকন্যার সহপাঠী একই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৯ জন শিক্ষার্থীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

মাদারীপুর স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে মাদারীপুর সদর হাসপাতালের নতুন ভবনে এক শ শয্যা প্রস্তুত করা হয়েছে। এ ছাড়াও সদর হাসপাতালের পুরনো ভবনের দুটি কেবিনের ৪টি বেড প্রস্তুত করা হয়েছে। চারটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২টি করে বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। করোনাভাইরাস মোকাবেলার জন্যে সচেতনামূলক লিফলেট বিতরণ করা হচ্ছে। এ ছাড়া যেকোনো সভা-সেমিনার না করার নিদের্শ দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক বলেন, স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে ইতালিপ্রবাসীর সন্তানের সাথে লেখাপড়া করা ১৯ শিক্ষার্থীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার পরামর্শ দিয়েছে। তারা আমাকে হাসপাতালে ডেকে পাঠিয়েছিল। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শংশাঙ্ক কুমার ঘোস বলেন, আইইডিসিআর কর্মকর্তারা মিডিয়ার সাথে কথা বলবেন না।

শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, যেহেতু ইতালিপ্রবাসী শিবচরে বেশি। তাই ঝুঁকি বেশি। হোম কোয়ারেন্টাইন যারা মানবেন না তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ১৯ শিক্ষার্থীসহ ৭০ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে আছে এ উপজেলায়।

মাদারীপুর সিভিল সার্জন ডা. মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, মাদারীপুর জেলায় ১২৯ জনকে করোনাভাইরাস আক্রান্তের সন্দেহে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়। এর মধ্যে শিবচরের ১৯ শিক্ষার্থী রয়েছে। এদের মধ্যে যারা হোম কোয়ারেন্টাইনে না থেকে নির্দেশ অমান্য করবে, তাদের ব্যাপারে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রতিটি উপজেলায় উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে যারা নির্দেশ অমান্য করবে তাদের জেল-জরিমানাও করবে।