সুন্দরগঞ্জে শিক্ষকের বিরুদ্ধে গৃহকর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগ

2

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ইউনুস আলীর (৫০) বিরুদ্ধে বাড়ির কিশোরী গৃহকর্মীকে (১৫) ধর্ষণের অভিযোগে সদর থানায় মামলা হয়েছে।
জানা যায়, মঙ্গলবার (৯ জুন) রাতে সদর থানায় মামলা করেন ধর্ষিত ঐ কিশোরী। অভিযুক্ত শিক্ষক জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার তারাপুর ইউনিয়নের নওহাটী গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে ও গাইবান্ধা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। তিনি বর্তমানে গাইবান্ধা শহরের থানাপাড়াস্থ নিজ বাসায় পরিবার নিয়ে বসবাস করেন। কিশোরীর পিতা জানান, শিক্ষক ইউনুস আলী তার চাচাতো ভাই। প্রায় ৩ বছর আগে তার মেয়েকে পড়াশোনার পাশাপাশি বাড়ির গৃহকর্মীর কাজ করার জন্য গ্রাম থেকে জেলা শহরের বাসায় নিয়ে যান।

কিশোরী জানান, প্রায় ৮-৯ মাস আগে একদিন দুপুর বেলায় সে তার শয়ন ঘরের বাথরুমের দরজার ছিটকিনি না দিয়ে গোসল করছিল। এসময় বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে ঐ শিক্ষক চাচা বাথরুমে প্রবেশ করে। সুযোগ বুঝে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এতে বাধা দিলে তিনি ভয়ভীতি দেখান। পরে ধর্ষণের বিষয়টি কাউকে না জানাতে ধর্মীয় গ্রন্থ স্পর্শ করিয়ে শপথ করান। এরপর থেকে কিশোরীকে নির্যাতন চালাতেন তার চাচা শিক্ষক ইউনুস আলী।

সদর থানা অফিসার ইনচার্জ খান শাহরিয়ার জানান, ঘটনাটি জেলা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) তদন্ত করছে। জেলা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন’র সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুল হাই জানান, মামলার তদন্ত অব্যাহত রয়েছে।