স্বিকার করলেন কেন স্বামীকে তালাক দিয়েছিলেন ডা. সাবরিনা!!!

▪️সকলস্থানে আলোচিত করোনার নমুনা পরীক্ষার নামে জালিয়াতির মামলায় জে.কে.জি হেলথ কেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরীকে দ্বিতীয় দফা জিজ্ঞাসাবাদে দুই দিনের রিমান্ডে নিয়েছে বাংলাদেশ গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। প্রতিষ্ঠানটির গুলশান কার্যালয়ে র‌্যাবের অভিযানের পর হঠাৎ করে স্বামী আরিফুল হক চৌধুরীকে ডিভোর্স (তালাক) দেন ডা. সাবরিনা।

▪️এই ডাক্তার দম্পতির মুখোমুখি জিজ্ঞাসাবাদে কেলেঙ্কারির জন্য পরস্পরকে দোষারোপ করা হলেও জে.কে.জি এর সব কর্মকাণ্ডের সঙ্গে ডা. সাবরিনার সম্পৃক্ততার বিষয়টি পুলিশ নিশ্চিত হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপতরে তার অনৈতিক প্রভাবেই জে.কে.জি করোনা টেস্টের কাজ ভাগিয়ে নেয় বলে পুলিশ তদন্তে উঠে এসেছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

▪️ ডিবি পুলিশ এর তদন্ত সূত্র জানায়, সাবরিনা সব জালিয়াতির জন্য তার স্বামীকে দুষছেন। তিনি দাবি করেছেন, জে.কে.জি এর জালিয়াতির বিষয়টি তিনি অধিদপতরে অতিরিক্ত মহাপরিচালক নাসিমা সুলতানাকে আগেই জানিয়েছিলেন। আরিফুলের সঙ্গ ত্যাগ করে তিনি বাবার বাসায় চলে যান। জালিয়তির সঙ্গে তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই।

▪️গত ১২ জুলাই গ্রেফতারের পরের দিন সাবরিনা ওরফে (মিষ্টিকে) প্রথম দফায় ৩ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়। বৃহস্পতিবার তার রিমান্ডের তৃতীয় দিন শেষ হয়। একই মামলায় সাবরিনার স্বামী হেলথ কেয়ারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুল হক চৌধুরীকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ডিবি। তাকে গত বুধবার ৪ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়।

  ▪️ গত ২৩ জুন ডা. সাবরিনার স্বামী আরিফসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করে তেজগাঁও থানা পুলিশ। ২৪ জুন তাকে ও সহযোগী সাঈদ চৌধুরীর দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকা মহানগর হাকিম আদালত। তাদের জিসাবাদেও বেরিয়ে আসে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। এই দম্পতির বর্তমানে রাজধানীর মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে রিমান্ডে রয়েছেন। রিমান্ডে দফায় দফায় মুখোমুখি হচ্ছেন আরিফ-সাবরিনা। স্বামীর সামনে সাবরিনা বলেন, আরিফের জন্যই আজ এই অবস্থা। আর স্বামী বলছেন, সব অপকর্মই জানতেন ও সুবিধা নিয়েছেন সাবরিনা।  পাপের বোঝা হস্তান্তরের চেষ্টা স্বামী-স্ত্রীর।।