হালকা জাহাজটি বে তে ক্যাপসেস করে, একজন নিখোঁজ

3

ভাসানচরের কাছে বঙ্গোপসাগরে আজ সকালে ৯৫০ টন কাঁচা চিনি বহনকারী একটি হালকা জাহাজ।

চ্যাটগ্রামের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গিয়াস উদ্দিন নামে চিহ্নিত তার ক্রু ১২ সদস্যের মধ্যে একজন নিখোঁজ রয়েছেন এবং অন্যদের ওই এলাকার অন্যান্য লাইটার জাহাজের কর্মীরা উদ্ধার করেছিলেন।

বাংলাদেশ নৌবাহিনীর উদ্ধার জাহাজ নিখোঁজ কর্মীদের তল্লাশি চালাচ্ছে বলে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

বিটিডব্লিউটিএর উপপরিচালক মোহাম্মদ সেলিম জানিয়েছেন, জাহাজটি এমভি এএল নূর -১ চতটগ্রাম বন্দরের বাইরের অ্যাংরেজে মাতৃ পাত্র থেকে আমদানি করা কাঁচা চিনি লোড করে নরসিংদীর দিকে যাচ্ছিল।

ভাসানচর থেকে সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে জলযানটি ডুবে যেতে শুরু করে যখন শক্তিশালী জলের স্রোত থেকে নীচে একটি ফাটল বিকশিত হওয়ার পরে ইঞ্জিনের ঘরে পানি প্রবেশ করে।
পণ্যগুলি দেশবন্ধু গ্রুপ আমদানি করে নরসিংদীর পোলাশ উপজেলাধীন গ্রুপের একটি চিনির কারখানায় নিয়ে যেত।

এমভি আকিজ লজিস্টিক্স -২৭ এবং এমভি সাফল্য -৩৩ – দুটি লাইটার জাহাজের কর্মীরা এই অঞ্চলটি অতিক্রম করে ডুবে যাওয়া জাহাজের দিকে ছুটে গিয়ে ১১ জন ক্রুকে উদ্ধার করতে সক্ষম হন।

এমভি আকিজ লজিস্টিক্স -২৭ এর কর্তা তাজুল ইসলাম ডেইলি স্টারকে জানিয়েছেন, ডুবে যাওয়া জাহাজের কর্তাটির বেতার বার্তা শুনে তারা সেখানে ছুটে এসেছিল। তারা রুক্ষ জলে তিন ঘন্টা চেষ্টার পরে ক্রুদের উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছিল।

জাহাজটি উল্টে গেছে এবং পরে থেঙ্গারচর উপকূলে ভেসে গেছে, বিআইডব্লিউটিএ ডিডি জানিয়েছে, তারা জাহাজটির নিজস্ব সংস্থা তাকওয়া শিপিং লাইনে জাহাজটি উদ্ধারের জন্য একটি চিঠি পাঠিয়েছে।